লিফটের নিচে ডাক্তারের লাশ- মামলা দায়ের

শেয়ার করুন...

বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের সিনিয়র কনসালট্যান্ট ডা. এম. এ. আজাদ সজলকে হত্যা করা হয়েছে অভিযোগে মামলা দায়ের হয়েছে। নিহতের ছোট ভাই বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে মঙ্গলবার রাতে কোতয়ালী মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ এ মামলার কোন আসামি গ্রেফতার করতে না পাড়লেও লাশ উদ্ধারের স্থান মমতা স্পেশালাইজড হাসপাতালের ১০ কর্মীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করছে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাদের আদালতে সোপর্দ করার কথা জানিয়েছে পুলিশ।

এদিকে গতকাল বুধবার দ্বিতীয় নামাজে জানাজা শেষে ডা. আজাদের মৃত দেহ ঢাকার কেরানীগঞ্জে দাফন করা হয়েছে।

শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের সিনিয়র কনসালট্যান্টের পাশাপাশি ডা. এম. এ. আজাদ সজল নগরীর কালীবাড়ি রোডের মমতা স্পেশালাইজড হাসপাতালের চেম্বারে রোগী দেখতেন। তার গ্রামের বাড়ি পিরোজপুরের স্বরূপকাঠী।

তবে তার স্ত্রী দুই সন্তান নিয়ে কেরানীগঞ্জে থাকেন। ডা. আজাদ ওই হাসপাতাল ভবনের সপ্তম তলার ডরমেটরীতে থাকতেন।

মঙ্গলবার রাতেই ডা. আজাদের লাশ নিয়ে ঢাকার কেরানীগঞ্জের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয় তার পরিবারের সদস্যরা। বুধবার সকাল সাড়ে ১০ টায় সেখানে দ্বিতীয় জানাজা শেষে তাকে কেরানীগঞ্জের ইমামবাড়ি কবরস্থানে দাফন করা হয়।


শেয়ার করুন...